Monday, June 21, 2021
Home ইসলাম প্রতিদিন সব সমস্যার এক সমাধান!

সব সমস্যার এক সমাধান!

 

মুফতি মাসউদুর রহমান ওবাইদী

সব সমস্যার এক সমাধান!

.একবার হাসান বাসরি (রাহ.) বসা ছিলেন। একজন লোক এসে বললেন—জনাব! আমি জীবনে অনেক গুনাহ করেছি, কীভাবে আমার জীবনের সব গুনাহ মাফ করাতে পারবো?

▪️তিনি বললেন, “যাও এবং ইস্তিগফার (আল্লাহর নিকট ক্ষমা প্রার্থনা) করো।”

বিজ্ঞাপনImage is not loaded

.কিছু সময় পর অপর এক লোক এসে বলল—অনেকদিন ধরে বৃষ্টি হচ্ছে না, এমন কোন আমল বলে দিন, যা করলে আল্লাহ বৃষ্টি দিবেন।

▪️তিনি বললেন, “যাও এবং ইস্তিগফার করো।”

.আরেকজন লোক এসে বলল—আমি ঋণে জর্জরিত। আমি কাজ করছি, আপনি আল্লাহর কাছে দুয়া করুন, যেন তিনি আমাকে সম্পদ দান করেন এবং আমি ঋণমুক্ত হতে পারি।

▪️তিনি বললেন, “যাও এবং ইস্তিগফার করো।”

.কিছু সময় পর আরেকজন লোক এসে বলল—আমি চাই আল্লাহ যেন আমাকে সন্তান দান করেন। আপনি দুয়া করুন।

▪️তিনি বললেন, “যাও এবং ইস্তিগফার করো।”

.অপর একজন লোক এসে বলল—আমার একটি বাগান আছে। আপনি দুয়া করুন যেন আমার বাগানে আল্লাহ ফল বেশি করে দেন।

▪️তিনি বললেন, “যাও এবং ইস্তিগফার করো।”

.হাসান বাসরি (রাহ.)-এর এক ছাত্র পাশেই বসা ছিলেন। তিনি এসব দেখে চিন্তা করতে লাগলেন, “কেন সবাইকেই হযরত বিভিন্ন সমস্যার একই সমাধান বলছেন?!”।

ছাত্রটি হাসান বাসরিকে জিজ্ঞেস করলো— কেন আপনি সকল সমস্যার একটাই সমাধান দিচ্ছেন?

হাসান বাসরি (রাহ.) মুচকি হেসে বললেন— কেন বেটা! তুমি কি আল্লাহ তাআলার এই বাণী পড়নি—

فَقُلْتُ اسْتَغْفِرُوا رَبَّكُمْ إِنَّهُ كَانَ غَفَّارًا

★★অতঃপর বলেছি, তোমরা তোমাদের পালনকর্তার নিকট ক্ষমা প্রার্থনা কর। তিনি অত্যন্ত ক্ষমাশীল।

يُرْسِلِ السَّمَاء عَلَيْكُم مِّدْرَارًا

★★তিনি তোমাদের উপর অজস্র বৃষ্টিধারা বর্ষণ করবেন,

وَيُمْدِدْكُمْ بِأَمْوَالٍ وَبَنِينَ وَيَجْعَل لَّكُمْ جَنَّاتٍ وَيَجْعَل لَّكُمْ أَنْهَارًا

★★তোমাদের ধন-সম্পদ ও সন্তান-সন্ততি বাড়িয়ে দিবেন, তোমাদের জন্যে উদ্যান স্থাপন করবেন এবং তোমাদের জন্যে নদী-নালা প্রবাহিত করবেন। [সূরা নূহ: ১০-১২]

. আন্দালুসের (স্পেনের) সুপ্রসিদ্ধ মুফাসসির ইমাম কুরতুবি রাহিমাহুল্লাহ তাঁর তাফসির “আল জামি’ লি-আহকামিল কুরআন”-এ উক্ত ঘটনাটি বর্ণনা করেছেন।

.হাফিয ইবনু তাইমিয়্যাহ (রাহ.) বলেন, 

“ইস্তিগফার (আল্লাহর কাছে ক্ষমা প্রার্থনা) হলো সবচেয়ে বড় নেককাজগুলোর অন্যতম; এর ব্যাপ্তি এতো বেশি যে, যখনই কেউ নিজের ইবাদাত, কথা ও কাজে ত্রুটি খুঁজে পায় অথবা তার রিযিকে স্বল্পতা পায় কিংবা তার হৃদয় থাকে অশান্ত, তার উচিত তৎক্ষণাত্ ইস্তিগফারে লেগে যাওয়া।” 

[মাজমূ’উ ফাতাওয়া: ১১/৬৯৮]

ইস্তিগফার এভাবে করতে পারেন—

এক.

শুধু أستغفر الله আসতাগফিরুল্লাহ বলা। অর্থাৎ, আমি আল্লাহর নিকট ক্ষমা প্রার্থনা করছি।

.দুই.

* أَسْتَغْفِرُ اللّٰهَ الَّذِي لا إلاه إلا هُوَ الْحَيُّ الْقَيُّوْمُ وَأَتُوْبُ إِلَيْهِ

আসতাগফিরুল্লা-হাল্লাযি লা ইলাহা ইল্লা হুওয়াল হাইয়ুল ক্বাইয়ূমু ওয়া আতূবু ইলাইহি।

(আমি আল্লাহর নিকট ক্ষমা প্রার্থনা করছি, যিনি ছাড়া কোনো উপাস্য নেই; তিনি চিরঞ্জীব এবং অবিনশ্বর।)

.তিন.

* أستغفر الله وأتوب إليه

আসতাগফিরুল্লাহা ওয়া আতূবু ইলাইহি।

(আমি আল্লাহর নিকট ক্ষমা প্রার্থনা করছি এবং তাঁর নিকটই তাওবাহ্ করছি।)

.চার.

* رَبِّ اغْفِرْ لِيْ وَتُبْ عَلَيَّ إِنَّكَ أَنْتَ التَّوَّابُ الرَّحِيْم

রাব্বিগ ফিরলি ওয়া তুব ‘আলায়্যা, ইন্নাকা আনতাত তাও-ওয়াবুর রাহীম।

(হে আমার রব! আমাকে ক্ষমা করুন, আমার তাওবাহ্ কবুল করুন। নিশ্চয়ই আপনি তাওবাহ্ কবুলকারী, অতীব দয়ালু।)

.★সর্বোত্তম ইস্তিগফার হলো, সাইয়্যিদুল ইস্তিগফার। এ দু’আটি সাইয়্যিদুল ইস্তিগফার বা ক্ষমা প্রার্থনার শ্রেষ্ঠ দু’আ হিসেবে পরিচিত। রসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, 

“যে ব্যক্তি সকালবেলা অথবা সন্ধ্যাবেলা এটি (‘সায়্যিদুল ইস্তিগফার’) অর্থ বুঝে দৃঢ় বিশ্বাসসহকারে পড়বে, সে ঐ দিন রাতে বা দিনে মারা গেলে অবশ্যই জান্নাতে যাবে।”

[বুখারী, ৭/১৫০, নং ৬৩০৬]

সাইয়্যিদুল ইস্তিগফার হলো–

اللّٰهُمَّ أَنْتَ رَبِّيْ لَا إِلَهَ إِلاَّ أَنْتَ، خَلَقْتَنِيْ وَأَنَا عَبْدُكَ 

হে আল্লাহ্‌! আপনি আমার রব্ব, আপনি ছাড়া আর কোনো হক্ব ইলাহ নেই। আপনি আমাকে সৃষ্টি করেছেন এবং আমি আপনার বান্দা।

আল্লা-হুম্মা আংতা রব্বী লা ইলা-হা ইল্লা আংতা খলাক্বতানী ওয়া আনা ‘আব্দুকা,

وَأَنَا عَلَى عَهْدِكَ وَوَعْدِكَ مَا اسْتَطَعْتُ، أَعُوْذُ بِكَ مِنْ شَرِّ مَا صَنَعْتُ 

আর আমি আমার সাধ্য মতো আপনার (তাওহীদের) অঙ্গীকার ও (জান্নাতের) প্রতিশ্রুতির উপর রয়েছি। আমি আমার কৃতকর্মের অনিষ্ট থেকে আপনার আশ্রয় চাই।

ওয়া আনা ‘আলা ‘আহদিকা ওয়া ওয়া‘দিকা মাস্তাত্বা‘তু। আ‘উযু বিকা মিন শাররি মা সনা‘তু,

أَبُوءُ لَكَ بِنِعْمَتِكَ عَلَيَّ، وَأَبُوءُ بِذَنْبِيْ 

আপনি আমাকে আপনার যে নিয়ামত দিয়েছেন তা আমি স্বীকার করছি, আর আমি স্বীকার করছি আমার অপরাধ।

আবূউলাকা বিনি‘মাতিকা ‘আলাইয়্যা, ওয়া আবূউ বিযাম্বী।

فَاغْفِرْ لِيْ فَإِنَّهُ لاَ يَغْفِرُ الذُّنُوْبَ إِلاَّ أَنْتَ 

অতএব আপনি আমাকে মাফ করুন। নিশ্চয় আপনি ছাড়া আর কেউ গুনাহসমূহ মাফ করে না।

ফাগফির লী, ফাইন্নাহূ লা ইয়াগফিরুয যুনূবা ইল্লা আংতা।

.[আরবি টেক্সট এর সাথে মিলিয়ে উচ্চারণ করুন, না হয় শুদ্ধ উচ্চারণ করতে পারবেন না।]

উপরের যে ইস্তেগফারটি শিখতে পারেন সেটাই আমল পারলেন।ইনশা-আল্লাহ

.ইস্তিগফার এবং দরুদ হলো সকল সমস্যার সমাধান। অসংখ্য হাদিসে এই দুটো আমলের ব্যাপারে গুরুত্বারোপ করা হয়েছে। আল্লাহ্ তা’আলা আমাদের ইস্তিগফারময় জীবন যাপনের তাওফিক দান করুন। আমিন।

জনপ্রিয় খবর