Wednesday, June 16, 2021
Home ইসলাম প্রতিদিন আল-আযহারে যাওয়ার আগে কওমি ছাত্রদের করণীয়!

আল-আযহারে যাওয়ার আগে কওমি ছাত্রদের করণীয়!

শিখো বাংলায়.কম: কওমি ছাত্রদের আল-আযহার ইউনিভার্সিটির উদ্দেশ্যে আসার পূর্বে সার্টিফিকেট, পাসপোর্ট ইত্যাদি সংক্রান্ত কাজের বিভিন্ন প্রক্রিয়া বিষয়ে আজকের নিবন্ধটি।

বিদেশে পড়তে আসা স্বপ্ন অনেকের। কিন্তু সঠিক পন্থা-পদ্ধতি জানা না থাকায় এ স্বপ্ন স্বপ্নই থেকে যায়। তাই আসুন আজ আমরা জানবো কিভাবে মিশরের আল আযহারে পড়াশোনা করতে আসবেন। আপনাকে কী কী কাজ করতে হবে। কী কী পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে।

কাজগুলোর প্রক্রিয়া হল-

এক. শরহে বেকায়ার সার্টিফিকেট ও নাম্বারশীটের এটেস্টেড (সত্যায়ন) করাতে হবে। যদি সার্টিফিকেট অথবা নাম্বারশীটের কোনো একটা বাংলা হয়, সেক্ষেত্রে আরবিতে অনুবাদ করে সেটারও সত্যায়ন করাতে হবে।

জ্ঞাতব্য: মিশরে সানাবিয়্যাহ তিন বছরে পড়ানো হয়ে থাকে, সেই হিসেবে “হেদায়াতুন্নাহ” এর নাম্বারশীট সানাবিয়্যা আউয়াল হিসেবে এবং “কাফিয়ার” নাম্বারশীট সানাবিয়্যা সানী হিসেবে বিবেচিত হবে। সাথে সাথে নাম্বারশীটদ্বয়ের এটেস্টেড (সত্যায়ন) ও করাতে হবে। এ ক্ষেত্রে হেদায়াতুন্নাহ বা কাফিয়ার সার্টিফিকেট এর প্রয়োজন নেই। তবে সানাবিয়্যা উলয়া অর্থাৎ সানাবিয়্যা সালেস (শরহে বেকায়া) এর সার্টিফিকেট ও নাম্বারশীট উভয়টিই লাগবে। যেমনটি আযহারের মা’হাদে পরিলক্ষিত হয়।

বিজ্ঞাপনImage is not loaded

দুই. মেশকাতের সার্টিফিকেট ও নাম্বারশীটের এটেস্টেড (সত্যায়ন) করাতে হবে।
তিন. দাওরার সার্টিফিকেট ও নাম্বারশীটের এটেস্টেড (সত্যায়ন) করাতে হবে। যেহেতু দাওরার নাম্বারশীট বাংলা হয়ে থাকে সে ক্ষেত্রে আরবিতে অনুবাদ করে সেটারও সত্যায়ন করাতে হবে।

চার. হিফ্জ সার্টিফিকেটের এটেস্টেড (সত্যায়ন) করাতে হবে। সার্টিফিকেট বাংলা হওয়ায় আরবিতে অনুবাদ করে সেটারও সত্যায়ন করাতে হবে। (বিশেষ দ্রষ্টব্য: আল আযহারে ভর্তি হওয়ার জন্য হিফজ সার্টিফিকেট অত্যাবশ্যক নয়)
পাঁচ. পুলিশ ক্লিয়ারেন্স সার্টিফিকেট লাগবে।

ছয়. পাসপোর্ট ফটো কপির এটেস্টেড (সত্যায়ন) করাতে হবে। সেই সাথে আরবিতে অনুবাদ করে সেটারও এটেস্টেড বা সত্যায়ন করাতে হবে।
সাত. ইংলিশ জন্ম নিবন্ধনের এটেস্টেড (সত্যায়ন) করাতে হবে। সেই সাথে আরবিতে অনুবাদ করে সেটারও সত্যায়ন করাতে হবে।

আট. চেয়ারম্যান সার্টিফিকেটের এটেস্টেড (সত্যায়ন) করাতে হবে। সেই সাথে আরবিতে অনুবাদ করে সেটারও সত্যায়ন করাতে হবে।
(অনুবাদ ও মূল কপি সবগুলোর’ই সত্যায়ন করাতে হবে)

অনুবাদের ক্ষেত্রে নাম, ঠিকানা ইত্যাদি সবকিছু যেন মূল কপির সাথে মিল বা সামঞ্জস্য থাকে। বিন্দু পরিমান যেন এদিক-সেদিক না হয়। পাসপোর্ট, জন্ম-নিবন্ধন, সার্টিফিকেট ইত্যাদি সব জায়গায় যেন নিজের নাম, পিতার নাম, মায়ের নাম একই রকম থাকে, কোনো ধরণের পার্থক্য যেন না থাকে। না হয় পরবর্তী সময়ে ভোগান্তিতে পড়ার সম্ভাবনা থাকে।

উল্লিখিত কাজগুলো নিম্নোক্ত দুই অনুবাদ সেন্টারের যে কোনো একটা থেকে করাতে পারেন।

১. দারুল আরাবিয়া অনুবাদ সেন্টার, (দ্বিতীয় তলায়) দৈনিক বাংলা মোড়, মতিঝিল C/A, Dhaka, 1000 Bangladesh । ফোন নম্বর: 01914334472 প্রোপাইটার: আব্দুস সাত্তার।

২. সৌদিয়া অনুবাদ সেন্টার, দৈনিক বাংলা মোড়, মতিঝিল C/A, Dhaka, Bangladesh। ফোন নম্বর: 01733159512 প্রোপাইটার: আব্দুস সামাদ। দারুল আরাবিয়ার পাশেই অবস্থিত, রাস্তার অপজিটে।

উল্লেখ্য, দারুল আরাবিয়ার কাজগুলো ভালো এবং মানসম্পন্ন হয়ে থাকে। বেশির ভাগ ছাত্ররা এখান থেকেই সব কাজ সম্পন্ন করে। সব মিলিয়ে যদি তারা টাকা কম নেয় এবং কাজগুলো করতে ইচ্ছা পোষণ করে, তাহলে কাজগুলো তাদের থেকে করানো’ই সবচেয়ে ভালো এবং পারফেক্ট।

একেবারে সম্ভব না হলে অর্থাৎ টাকা বেশি চেয়ে বসলে তখন সৌদিয়া অনুবাদ সেন্টার অথবা অন্যান্য অনুবাদ সেন্টার থেকে করাতে পারেন।
আরো কিছু বাকি থেকে থাকলে পরবর্তীতে সংযোজন করে দেবো। ইনশাআল্লাহ!

কাজগুলো কওমি মাদরাসার ঐ ভাইয়ের জন্য প্রযোজ্য, যে হাতে ভিসা পেয়েছে। টুরিষ্ট, স্টুডেন্ট ইত্যাদি যে কোনো ভিসা’ই হোক না কেন। আল-আযহার ইউনিভার্সিটিতে ভর্তি হওয়ার জন্য স্টুডেন্ট ভিসা জরুরি নয়, তবে থাকলে ভালো হয়। আল-আযহার ইউনিভার্সিটি সবার জন্য উন্মুক্ত। যে কোনো প্রয়োজনে আওয়ার ইসলামের আল আযহার ইউনিভার্সিটি প্রতিনিধি Hm Najmul Hasan এর সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারেন।

জনপ্রিয় খবর