Wednesday, June 16, 2021
Home বাংলাদশে সংবাদ তল্লা মসজিদে বিস্ফোরণ: কমিটির সভাপতিসহ ২৯ জনের বিরুদ্ধে চার্জশিট

তল্লা মসজিদে বিস্ফোরণ: কমিটির সভাপতিসহ ২৯ জনের বিরুদ্ধে চার্জশিট

শিখো বাংলায়.কম: নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লার পশ্চিম তল্লার বায়তুস সালাত জামে মসজিদে বিস্ফোরণে ৩৪ জনের মৃত্যুর ঘটনায় মসজিদ কমিটির সভাপতিসহ ২৯ জনকে অভিযুক্ত করে অভিযোগপত্র (চার্জশিট) জমা দিয়েছে সিআইডি। চার্জশিটে বাদ দেয়া হয়েছে তিতাস গ্যাসের গ্রেফতার হওয়া আট কর্মকর্তা-কর্মচারীকে।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় নারায়ণগঞ্জ কোর্ট পুলিশের ইন্সপেক্টর আসাদুজ্জামানের কাছে এই অভিযোগপত্র দাখিল করেছেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা।

তবে অভিযুক্ত আরো আটজন সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারী হওয়ায় ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের অনুমোদন প্রাপ্তি সাপেক্ষে তাদের বিরুদ্ধে সম্পূরক অভিযোগপত্র দাখিল করা হবে বলে চার্জশিটে উল্লেখ করা হয়েছে।

মামলায় আসামি করা হয়েছে আব্দুল গফুর মিয়া (৬০), সামসুদ্দিন সরদার (৬০), শামসু সরদার (৫৭), শওকত আলী (৫০), অসিম উদ্দিন (৫০), জাহাঙ্গীর আলম (৪০), শফিকুল ইসলাম উজ্জ্বল (৪৫), নাঈম সরদার (২৭), তানভীর আহমেদ (৪৫), আল আমিন (৩৫), আলমগীর সিকদার (৩৫), আলহাজ্ব মাওলানা আল আমিন (৪৫), সিরাজ হাওলাদার (৫৫), নেওয়াজ মিয়া (৫৫), নাজির হোসেন (৫৬), আবুল কাশেম (৪৫), আব্দুল মালেক (৫৫), মনিরুল (৫৫), স্বপন মিয়া (৩৮), আসলাম আলী (৪২), আলী তাজম (মিল্কী) (৫৫), কাইয়ুম (৩৮), মামুন মিয়া (৩৮), দেলোয়ার হোসেন, বশির আহমেদ (হৃদয়) (২৮), রিমেল (৩২), আরিফুর রহমান (৩০), মোবারক হোসেন (৪০) ও রায়হানুল ইসলামকে (৩৬)।

তদন্ত রিপোর্টে সিআইডি উল্লেখ করেছে, তিন মাস ধরে মসজিদের পাশে তিতাস গ্যাসের লিকেজ থেকে গ্যাস বের হয়ে মসজিদের অভ্যন্তরে জমা হতে থাকে। বাধাহীন ভাবে গ্যাস উদগীরণ হয়ে মসজিদ গ্যাস চেম্বারে পরিণত হয়। ঘটনার ৭/৮ দিন আগে গ্যাসের তীব্রতা বৃদ্ধি পেলে মুসল্লিরা মসজিদ কমিটিকে জানান। কিন্তু তারা কোনো আমলে নেননি।

বিজ্ঞাপনImage is not loaded

তারা জানায়, ঘটনার দিন এশার নামাজের পর বিদ্যুৎ চলে গেলে ম্যানুয়েল চেঞ্জ অভারের মাধ্যমে বৈদ্যুতিক লাইন পাল্টানোর সময় বিদ্যুতের স্পার্ক হয়। তখন বিদ্যুতের স্পার্ক ও মসজিদে জমে থাকা গ্যাসের সমন্বয়ে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে।

সিআইডি জানায়, কমিটির মসজিদ পরিচালনায় অবহেলা অব্যবস্থাপনা, উদসীনতা, কারিগরি দিক বিবেচনা না করে অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোগ ঝুঁকিপূর্ণভাবে লাগানো, গ্যাসের উপস্থিতি টের পাওয়ার পরও মানুষের জীবনের নিরাপত্তার কথা না ভেবে কোনো ব্যবস্থা না নেয়া, ডিপিডিসির মিটার রিডিং কালেকটর ও কারিগরদের মসজিদে অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোগ, তিতাসের গ্যাসের লাইন তদারকি না করার জন্য দুর্ঘটনার জন্য দায়ী উল্লেখ করা হয়।

উল্লেখ্য, গত ৪ সেপ্টেম্বর সদর উপজেলার পশ্চিম তল্লার এলাকার বায়তুস সালাত জামে মসজিদে ভয়াবহ বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। বিদ্যুতের স্পার্ক ও মসজিদের অভ্যন্তরে জমে থাকা গ্যাসের কারণেই এই বিস্ফোরণটি হয়েছে বলে জানিয়েছে সিআইডি। এই বিস্ফোরণে ৩৪ জনের প্রাণহানি হয়েছে।

জনপ্রিয় খবর