Sunday, January 17, 2021
Home আন্তর্জাতিক বিশ্ব রাসূল সা. এর অবমাননা শাস্তিযোগ্য অপরাধ : ইউরোপিয়ান কোর্ট অব হিউম্যান রাইট্স

রাসূল সা. এর অবমাননা শাস্তিযোগ্য অপরাধ : ইউরোপিয়ান কোর্ট অব হিউম্যান রাইট্স

শিখোবাংলায়.কম: দ্য ইউরোপিয়ান কোর্ট অব হিউম্যান রাইট্স (ইসিএইচআর) সর্বসম্মতভাবে আদেশ দিয়েছেন যে, ইউরোপের সরকারগুলো তাদের নাগরিকদের নবী মোহাম্মদ (সা.)কে আক্রমণ ও কট‚ক্তি করার জন্য জরিমানা বা কারাবাসের দন্ড দিতে পারে। ইউরোপিয়ান আদালত বলেছেন, যারা নবীর (সা.)-এর ওপর অবমাননাকর আক্রমণ করে, যা বিদ্বেষকে উৎসাহিত করতে এবং ধর্মীয় শান্তিকে ঝুঁকিতে ফেলতে সক্ষম, তাদের ৪৮০ ইউরো মাঝারি জরিমানা হতে বা ৬০ দিনের কারাদন্ড হতে পারে।

ইসিএইচআর জানিয়েছেন, ‘এ জাতীয় কার্যকলাপ মতপ্রকাশের স্বাধীনতার অনুমোদিত সীমা অতিক্রম করে এবং হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে অপমান করা উদ্দেশ্যমূলক বিতর্কের অনুমতিসীমা অতিক্রম করে এবং বিদ্বেষ উস্কে দিতে পারে এবং ধর্মীয় শান্তি ঝুঁকিতে ফেলতে পারে।’ ইসিএইচআরের বিবৃতিতে এও নিশ্চিত করা হয়েছে যে, আদালতের গৃহীত সিদ্ধান্তটি মানবাধিকার বিষয়ক ইউরোপীয় কনভেনের ১০ অনুচ্ছেদ অনুযায়ী মত প্রকাশের স্বাধীনতা রক্ষা করে এবং লঙ্ঘন করে না।

ইউরোপে মোহাম্মদ (সা.) নিয়ে কট‚ক্তির জন্য জরিমানা বা কারাবন্দি করা মত প্রকাশের স্বাধীনতা লঙ্ঘন নয়। কারণ এ ধরনের আক্রমণ একটি উদ্দেশ্যমূলক বিতর্কের অনুমতিসীমা ছাড়িয়ে যায় এবং মুসলমানদের মধ্যে ন্যায়বিচারের ক্রোধ জাগ্রত করতে পারে এবং নিঃসন্দেহে মোহাম্মদ (সা.)-এর ক্ষেত্রে সাংস্কৃতিক প্রসঙ্গ এবং ধর্মীয় ইতিহাস বিবেচ্য। আদালত বলেছেন যে, ন্যায়সঙ্গত আক্রোশ জাগিয়ে তুলতে সক্ষম ধর্ম সম্পর্কে এমন বিবৃতি সহিষ্ণুতার চেতনার হিংসামূলক লঙ্ঘন এবং তাই বিরত করা আবশ্যক। অথবা, আরও স্পষ্টভাবে বললে, যারা ঐতিহাসিক অজ্ঞতা বা ধর্মীয় কুসংস্কারের দিক থেকে মোহাম্মদ (সা.)কে কট‚ক্তি করেন তাদের এখন জরিমানা বা কারাবাস হতে পারে।

উল্লেখ্য, বাক-স্বাধীনতা নিয়ে স্কুলের শিক্ষার্থীদের সঙ্গে আলোচনা করতে গিয়ে ফ্রান্সের রাজধানী প্যারিসের উপকণ্ঠের মাধ্যমিক স্কুলের শিক্ষক স্যামুয়েল প্যাটি হযরত মুহাম্মদ (সা.) এর কার্টুন প্রদর্শন করলে গত ১৬ অক্টোবর এক চেচেন কিশোর স্যামুয়েলকে হত্যা করে। এরপর দক্ষিণের নাইস শহরে ৩ চার্চ যাত্রীকে ছুরি মেরে হত্যা করা হয়। এ হামলার মূল সন্দেহভাজন এক তিউনিসিয়ান পরে পুলিশ অফিসারদের দিকে ‘আল্লাহু আকবর’ বলে চিৎকার করেন।
এ ঘটনার পর ফ্রান্সের পুলিশ দেশটির অন্তত ৫০টি মসজিদ এবং মুসলিম অধ্যুষিত এলাকায় সাড়াশি অভিযান চালায়। ফরাসি প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাখোঁ হত্যাকান্ডলোর জন্য তার দেশের উগ্র মুসলিমদের দায়ী করেন। তিনি একই সঙ্গে ঘোষণা করেন যে, ফ্রান্সে এ ধরনের ব্যঙ্গচিত্র প্রকাশ অব্যাহত থাকবে। এ নিয়ে সমগ্র মুসলিম বিশ্বে তীব্র প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়।

এ নিয়ে পক্ষে বিপক্ষে বিশ্বব্যাপি সমালোচনার ঝড় উঠলেও ফ্রান্সের বাক স্বাধীনতার ও ধর্ম নিরপেক্ষতার আইন ল্যাচিটির কারণে অনুসরণ করে ইসলামের সমালোচনাকারীদের পক্ষে শক্ত অবস্থান নেন ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাখোঁ। তবে, ইউএইচসিআর’র নির্দেশনার ফলে মুসলিমদের জন্য প্রতিবাদের একটি ইতিবাচক পথ তৈরি হয়েছে।

বিজ্ঞাপনImage is not loaded
বিজ্ঞাপনImage is not loaded

জনপ্রিয় খবর