শিখোবাংলায়.কম: বাংলাদেশে সংখ্যালঘু হিন্দুদের উপর নির্যাতনের অভিযোগ তুলে ভারতের কট্টর হিন্দুত্ববাদী সংগঠন বিশ্ব হিন্দু পরিষদ ও বজরং দল কলকাতায় বাংলাদেশ উপ হাইকমিশন ঘেরাও করেছে।পাশাপাশি উগ্র হিন্দুত্ববাদী এই সংগঠন দুটি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কুশপুত্তলিকা এবং বাংলাদেশের পতাকা পুড়িয়েছে।

জানা গেছে, বজরং দলের কলকাতার বাংলাদেশ ডেপুটি হাইকমিশন ঘেরাও কর্মসূচী নিয়ে জানতে নয়া দিল্লিকে কূটনৈতিক চিঠি দেবে ঢাকা। পাশাপাশি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কুশপুত্তলিকা পোড়ানো এবং বাংলাদেশের পতাকা পোড়ানো নিয়ে কূটনৈতিক পথে প্রতিবাদ জানাবে বাংলাদেশ।

বাংলাদেশের পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম জানান, ‘আমাদের ডেপুটি হাইকমিশন ঘেরাওয়ের যে কর্মসূচী হয়েছে সেটি জানতে চেয়ে দিল্লির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে কূটনীতিক পত্র পাঠানো হবে।’

হিন্দু নির্যাতনের প্রতিবাদের অভিযোগ তুলে বজরং দলের এই কর্মসূচী সম্পর্কে এক প্রতিক্রিয়ায় বাংলাদেশ জাতীয় হিন্দু মহাজোটের মহাসচিব গোবিন্দ প্রামাণিক ভারতের একটি সংবাদ মাধ্যমকে জানান, ‘বাংলাদেশে হিন্দু নির্যাতনের বিরুদ্ধে হাসিনা সরকার যথাযথ ব্যবস্থা না নেয়ায় ভারতসহ বিভিন্ন দেশে বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ছে। এতে করে বাংলাদেশের সম্মান নষ্ট হচ্ছে বলে দাবি এই হিন্দু মহাজোট নেতার।

তার ভাষায়, ‘বাংলাদেশের হিন্দুদের ওপর নির্যাতন নিয়ে অতীতে ভারতের কোন সংগঠন সমবেদনা বা প্রতিবাদ করেনি। বিশ্ব হিন্দু পরিষদ, বজরং দল, হিন্দু সংহতিসহ অন্যান্য সংগঠন বাংলাদেশের হিন্দুদের পাশে এসে দাঁড়িয়েছেন, প্রতিবাদ জানাতে গিয়ে গ্রেফতার হয়েছেন, পুলিশের লাঠিচার্জে আঘাত প্রাপ্ত হয়েছেন সেজন্য আমরা তাদের প্রতি কৃতজ্ঞ।’