শিখোবাংলায়.কম: জম্মু-কাশ্মীর সীমান্তে পাকিস্তানি সামরিক বাহিনীর হামলায় ভারতীয় ৩ সেনা হয়েছেন। একই ঘটনায় আরও চার বেসামরিক নাগরিক নিহতের অভিযোগ করেছে ভারত। শুক্রবার (১৩ নভেম্বর) এ গোলাগুলির ঘটনা ঘটে বলে জানায় ভারতীয় সংবাদমাধ্যম।

এ ঘটনায় ভারতীয় বাহিনীর ২ সেনা এবং সীমান্ত সুরক্ষা বাহিনীর (বিএসএফ) একজন কমান্ডার নিহত হন। নিহত চার বেসামরিকের মধ্যে এক নারী রয়েছেন।

ভারতীয় বাহিনী অভিযোগ করে, পাকিস্তান বিনা উস্কানিতে লাইন অব কন্ট্রোল (এলওসি) অতিক্রম করে আকষ্মিকভাবে ভারী মর্টার ও গোলা নিক্ষেপ করলে এ হতাহতের ঘটনা ঘটে। ভারতের পাল্টা হামলায় পাকিস্তানেরও বেশ কয়েকজন সেনা নিহত ও আহতের দাবি করে ভারত। তবে সে সংখ্যা উল্লেখ করা হয়নি।

এদিকে, পাকিস্তান সেনাবাহিনী এক বিবৃতিতে এ ঘটনা সম্পর্কে উল্লেখ করে, ভারতীয় বাহিনী বিনা উস্কানিতে হঠাৎ করে দিনের শুরুতে রকেট ও মর্টার সেল হামলা চালায় পাকিস্তানের অভ্যন্তরে। এতে এক বেসামরিক লোক নিহত ও তিনজন গুরুতর আহত হন। ঘটনার পাল্টা জবাব হিসেবে ভারতে হামলা চালানো হয়।

ভারতের শ্রীনগরের পুলিশ কর্মকর্তা মোহাম্মদ আশরাফ বলেন, ‘আমরা ২ ভারতীয় সেনা ও এক নারীসহ চারজন বেসামরিক নাগরিকের লাশ উদ্ধার করেছি। তারা পাকিস্তান থেকে ছোঁড়া মর্টার শেলের গোলার আঘাতে নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন বেশ কয়েকজন, তাদের মধ্যে একজনের অবস্থা গুরুতর। এ ঘটনায় দুটি বাড়ি ধ্বংস হয়েছে।’

ভারতীয় সেনাবাহিনীর মুখপাত্র রাজেশ কালিয়া বলেন, ‘পাকিস্তান আগে মর্টার শেল দিয়ে হামলা করলে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে গোটা এলাকায়।’

অন্যদিকে, পাকিস্তান আর্মি দাবি করেছে, বৃহস্পতিবার রাত থেকে শুরু হয়েছে উত্তেজনা। প্রথমে ভারতীয় বাহিনী পাকিস্তানে হামলা চালায়।’

গতরাতে পাকিস্তানের এক বেসামরিক নাগরিক নিহতের বিষয় বিবেচনায় চলমান উত্তেজনা ও দুপক্ষের হামলায় তিন ভারতীয় সেনা ও চার বেসামরিক নাগরিকসহ ৮ জন নিহতের ঘটনা ঘটল। আহত হয়েছেন বেশ কয়েকজন। দুপক্ষেরই আহত অনেকের অবস্থাই গুরুতর। পারমাণবিক শক্তিধর দেশ দুটিতে হঠাৎ করে এমন সংঘর্ষের ঘটনায় এ অঞ্চলে আবারও পুরাতন উত্তেজনা নতুন করে বেড়েছে।