ফজরের অজু করতে গিয়ে ধর্ষণে প্রাণ গেল কওমি মাদরাসাছাত্রী তানজিলার

19

শিখো বাংলায়: ফজর নামাজের জন্য অজু করতে বাইরে গিয়ে নিখোঁজ হয় কিশোরী। সূর্যের আলো উঠতেই সেই কিশোরীর লাশ পাওয়া যায় তার বাড়ির পাশের ডোবায়। বৃহস্পতিবার (১৫ অক্টোবর) সকালে নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজার উপজেলার গোপালদী পৌরসভার রামচন্দ্রদী এলাকা থেকে কিশোরীর লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

নিহত কিশোরী রামচন্দ্রদী এলাকার মাটিকাটার শ্রমিক আফতাব উদ্দিন ওরফে আকতার হোসেনের মেয়ে তানজিনা আক্তার (১৫)। সে স্থানীয় একটি কওমি মাদরাসার ছাত্রী। পরিবারের দাবি, ওই কিশোরীকে ধর্ষণের পর হত্যা করেছে অজ্ঞাত দুর্বৃত্তরা।

নিহতের বাবা আকতার হোসেন বলেন, বৃহস্পতিবার (১৫ অক্টোবর) ভোরে ফজর নামাজ পড়তে আমরা সবাই ঘুম থেকে উঠি। একই সময় আমার মেয়েও নামাজ পড়তে উঠে ওজু করতে বাইরে যায়। আমরা নামাজের পর মেয়েকে না দেখে খুঁজতে থাকি। এরপর সকালে বাড়ির পাশে একটি গর্তে তানজিনার লাশ দেখতে পাই।

আড়াইহাজার থানার গোপালদী তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ ইন্সপেক্টর আজহার পরিবারের বরাত দিয়ে জানান, তানজিনা আক্তার একটি মাদ্রাসার শিক্ষার্থী। ভোরে কে বা কারা তানজিনাকে ধর্ষণের পর শ্বাসরোধে হত্যা করে তাদের বাড়ির পাশে একটি গর্তে লাশটি ফেলে দিয়ে যায়। পরে খবর পেয়ে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য সদরের ১০০ শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালের মর্গে পাঠায়।

আড়াইহাজার থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) নজরুল ইসলাম জানান, পরিবারের সদস্যরা বলছেন, ফজর নামাজ পড়তে উঠে অজু করতে গিয়ে নিখোঁজ হয় কিশোরী। তখন খোঁজাখুঁজি করে না পেয়ে সকালে বাড়ির পাশের একটি গর্তে গলায় ওড়না পেঁচানো অবস্থায় লাশটি পড়ে থাকতে দেখেন।

ওসি নজরুল ইসলাম বলেন, বিষয়টি আমরা খতিয়ে দেখছি। এখন পর্যন্ত আমরা শ্বাসরোধে হত্যা বলে ধারণা করছি। তবে লাশের ময়নাতদন্তের রিপোর্টের পর হত্যার আসল কারণ জানা যাবে। এ ঘটনায় জড়িতদের শনাক্ত করে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে বলেও জানান তিনি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here