শিখোবাংলায়.কম: ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের নায়েবে আমীর মুফতী সৈয়দ মুহাম্মাদ ফয়জুল করীম বলেছেন, প্রকৃত সাম্যবাদ একমাত্র ইসলামই শিখিয়েছে। ইসলামের সাম্যবাদ পৃথিবীর কোথাও নেই। এখনও প্রকৃত সাম্য বা ইনসাফ পেতে হলে ইসলামেই সকলকে ফিরে আসতে হবে। সাম্য, মৈত্রী, মানবিক মূল্যবোধ ও ন্যায় বিচার কেবল ইসলামেই সম্ভব। এছাড়া সাম্য কোথা নেই, সবই বুলি মাত্র। ইসলামের সাম্যের প্রতীক অর্ধ জাহানের খলিফা হযরত ওমর রা.। তিনি সাম্য কাকে বলে এবং তা কয় প্রকার বিশ্ববাসীকে শিখিয়ে গেছেন। ইসলামের সেই সাম্য এখনও সম্ভব। কাজেই ন্যায় বিচার ও ইনসাফ প্রতিষ্ঠার জন্য ইসলামের বিকল নেই।

সোমবার (১৬ নভেম্বর) সন্ধ্যায় কুমিলস্নার মুরাদনগর উপজেলার পাঁচ পুকুরিয়া হাইস্কুল মাঠে আয়োজিত বিশাল ইসলামী সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

মুফতী ফয়জুল করীম বলেন, শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের ধর্মীয় অনুষ্ঠানে গিয়ে দেশের বৃহত্তর জনগোষ্ঠীর শ্রদ্ধাভাজন ধর্মীয় নেতাদের বিরুদ্ধে ঔদ্ধত্যপূর্ণ ও উস্কানীমূলক বক্তব্য দিয়ে চরম ধৃষ্টতা প্রদর্শন করেছেন।

তিনি বলেন, দেশের কোন ইসলামী নেতা বা উলামা-মাশায়েখ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে অশ্রদ্ধা ও অসম্মান করেননি। সঠিক পদ্ধতিতে বঙ্গবন্ধুর রূহের মাগফিরাত কামনার কথা বলেছেন। ভাস্কর্যের নামে বঙ্গবন্ধুর মূর্তির পরিবর্তে আলস্নাহর নিরানব্বই নাম খচিত মিনার নির্মাণের দাবি করা যে বঙ্গবন্ধুর অসম্মান নয় বরং তাকে আরো শ্রদ্ধার আসনে বসানো, একথা যে উপলব্ধি করতে পারে না সে কি করে বিরানব্বই ভাগ মুসলমানের দেশের শিড়্গা মন্ত্রণালয়ের উপমন্ত্রীর দায়িত্ব পায়, তা আমাদের বুঝে আসে না।

মুফতী মুহাম্মদ মফিজুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সম্মেলনে কুমিলস্না-৩ আসনে হাতপাখার প্রার্থী মাওলানা আহমদ আবদুল কাইয়ূম, মাওলানা আব্দুর রাজ্জাক, কামরুল ইসলাম খোকন, মাওলানা তৈয়্যব, মাওলানা মোজাজম্মেল হোসেন ফারম্নকী, এমএম বেলাল হোসেন, মাওলানা নূর হোসাইন, মাওলানা আবু বকর সিদ্দিক, মুহাম্মদ আব্দুল আলিম, আনোয়ার হোসেন, আবুল হোসেন আবু, তোফাজ্জল হোসেনসহ স্থানীয় বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।