নামাযে রিংটোন বন্ধ করার নিয়ম

30

মুফতী মুহাম্মাদ মাসউদুর রহমান ওবাইদী: প্রশ্ন ঃ কোন ব্যক্তি নামাজ শুরু করার পর তার পকেটে মোবাইল ফোন বেজে উঠল আশেপাশে সকলেরই নামাজের একাগ্রতা নষ্ট হল এমতাবস্থায় তার কি করনীয় কি? নামাজ অবস্থায় বন্ধ করবে? না নামাজ ছেড়ে দিয়ে বন্ধ করবে নাকি বাজতে থাকবে ? অনেক সময় মোবাইল প্যান্টের পকেটে থাকে আবার জামার পকেটে থাকে অনেক সময় একটি টিপে বন্ধ হয় না বারবার রিং দিতে থাকে তখন এক টিপে বন্ধ করলে আমলে কাসীর হবে কিনা ? ইমাম ও মুক্তাদির মধ্যে এক্ষেত্রে কোন পার্থক্য আছে কিনা? ইকামতের সময় ইমাম মুয়াজ্জিনের মোবাইল বন্ধ করুন বলা কতখানি দায়িত্ব ? দেখা গেছে ইমামের নিয়ত বাধার পরও অনেক মুসল্লি আসে যার ফলে এলানের পরেও মোবাইল বাজে এমতাবস্থায় করণীয় কি ?

উত্তরঃ মসজিদে প্রবেশের পূর্বেই মোবাইল বন্ধ করে নেওয়া উচিত| তা সত্ত্বেও ভুলে বন্ধ না করলে নামাজে রিং বাজার সাথে সাথে একটিপ দিয়ে মোবাইল বন্ধ করে দিবে এতে নামাজ নষ্ট হবে না | ইমাম-মুক্তাদী উভয়ের ব্যাপারে একই হুকুম | যদি কারো আমলে কাসীর এর মাধ্যমে মোবাইল বন্ধ করতে হয় তাহলে অন্যের নামাজে ব্যাঘাত ঘটায় ক্ষেত্রে নামাজ ছেড়ে দিয়ে মোবাইল বন্ধ করার অবকাশ আছে | উল্লেখ্য যে নামাজের পূর্বে ইমাম মুয়াজ্জিনের মোবাইল বন্ধ করুন বলা তাদের দায়িত্বের অন্তর্ভুক্ত না হলেও বলাটা আপত্তিকর নয় |

দলিলঃ ফতুয়ায়ে কাযীখান খন্ড নং 1 পৃষ্ঠা নং 269 ( জাকিরিয়া) ় আজিজুল ফতোয়া খন্ড নং 1 পৃষ্ঠা নং 242 ( দারুল এশাআত)

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here